ইসলামিক অনলাইন একাডেমী একটি অনলাইন মাদ্রাসা

ইসলামের বিভিন্ন বিষয়ে অধিকাংশ জেনারেল শিক্ষিত বাংলা ভাষাভাষী ভাই-বোনদের অজ্ঞতা দূর করা এবং তাদেরকে কুর'আন, সুন্নাহ ও সালাফে সালিহীনগনের বিশুদ্ধ মানহাজের আলোকে ইসলামের জ্ঞানে জ্ঞানী বানানো আমাদের উদ্দেশ্য। আপনি ঘরে বসেই অনলাইনে আমাদের কোর্সগুলো করতে পারবেন। আমাদের অভিজ্ঞ উস্তাদগন আপনাদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা করবেন।

কিভাবে কোর্স শুরু করবেন

রেজিস্ট্রেশন ও কোর্স নির্বাচন

আপনার নাম, ইমেইল এবং ফোন নম্বর দিয়ে প্রথমে রেজিস্ট্রেশন করুন । এর পরে লগইন করুন ।
আপনার পছন্দের কোর্স নির্বাচন করুন। কোর্স ডিটেলস পেজ থেকে ভর্তি হোন বাটনে ক্লিক করুন ।

ফেসবুক পেইজে যোগাযোগ করুন

আমাদের ফেসবুক পেইজে ম্যাসেজ/ইনবক্স করুন, আপনার নির্বাচিত কোর্সের নাম বলুন অতঃপর আমাদের দিক নির্দেশনা অনুযায়ী কোর্সে ভর্তি সম্পন্ন করুণ।

ক্লাস শুরু করুন

আমরা আপনার রেজিস্ট্রেশন ও কোর্সে ভর্তি সম্পন্ন করার পর নির্ধারিত কোর্সের ফেসবুক ও Whatsapp গ্রুপে জইন করুণ এবং এখানে এসে ক্লাস শুরু করুণ।

সচরাচর জিজ্ঞাসাসমূহ

প্রশ্নঃ ফ্রি-মিক্সিং এড়াতে এই একাডেমীতে কী নারী ও পুরুষদের জন্য আলাদা ব্যবস্থা রয়েছে?

উত্তরঃ জ্বী, নারী ও পুরুষদের জন্য সম্পূর্ণ আলাদা ব্যবস্থা রয়েছে।

প্রশ্নঃ একাডেমীতে যারা শিক্ষক হিসেবে রয়েছেন, তারা কী শিক্ষা প্রদান করার ক্ষেত্রে সার্টিফাইড?

উত্তরঃ আমাদের একাডেমীর শিক্ষকগন বিভিন্ন আলীমগনের কাছ থেকে ইজাযাহ ও সনদ প্রাপ্ত। বিভিন্ন আলীমগন তাদেরকে ‘আলীম’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন।

প্রশ্নঃ যাদের অর্থনৈতিক সামর্থ্য নেই, তাদের জন্য কী ছাড় বা সম্পূর্ন ফ্রী’তে কোর্স করার সুযোগ রয়েছে?

উত্তরঃ আলহামদুলিল্লাহ, একাডেমীর শুরু থেকেই আমরা বিপুল সংখ্যক ভাই-বোনদের ছাড় ও সম্পূর্ণ ফ্রী’তে বিভিন্ন কোর্সে অংশগ্রহন করার সুযোগ দিয়ে আসছি, এ সুযোগ ভবিষ্যতেও বিদ্যমান থাকবে ইন শা আল্লাহ।

প্রশ্নঃ একাডেমীর কোর্সগুলো কী জেনারেল শিক্ষিত বা চাকুরীজীবীদের জন্য উপযুক্ত?

উত্তরঃ জ্বী, আমাদের কোর্সগুলো জেনারেল শিক্ষিত বা চাকুরীজীবীদের জন্যই ডিজাইন করা হয়েছে। আলহামদুলিল্লাহ, আমাদের একাডেমীর অনেক ছাত্র-ছাত্রী ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, বিশ্ববিদ্যালয়য়ের প্রফেসর, মেডিক্যাল ও অন্যান্য সাবজেক্টের স্টুডেন্ট।

প্রশ্নঃ কোর্স শেষে সার্টিফিকেট প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে?

উত্তরঃ আমরা সালাফে স্বলেহীনদের অনুসরন করতে ভালোবাসি, তাই আমাদের একাডেমীতে সালাফদের ‘ইজাযাহ’ পদ্ধতি রয়েছে, পাশাপাশি আমরা সার্টিফিকেটও প্রদান করে থাকি।

প্রশ্নঃ লাইভ ক্লাসে অংশগ্রহন করার জন্য কী নারীদের ক্যামেরার সামনে আসা জরুরী?

উত্তরঃ না, নারী ও পুরুষ কাউকেই ক্যামেরার সামনে আসতে হয় না।

প্রশ্নঃ পরীক্ষা নেওয়ার পদ্ধতি কেমন এবং কত দিন পর পর পরীক্ষা নেওয়া হবে?

উত্তরঃ MCQ, Short QA(এক কথায় উত্তর) ও মৌখিক – এ তিনটি পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেওয়া হবে। প্রতিটি ক্লাসের পর MCQ পরীক্ষা রয়েছে।

প্রশ্নঃ শিক্ষারত অবস্থায় যদি কোনো কিছু বুঝতে সমস্যা হয়, তাহলে কী সরাসরি শিক্ষকের সাথে যোগাযোগ করার সুযোগ রয়েছে?

উত্তরঃ জ্বী অবশ্যই, Facebook, Whatsapp ও মোবাইল কলের মাধ্যমে সরাসরি শিক্ষকের সাথে কথা বলার সুযোগ রয়েছে। যেসকল বোনেরা কথা না বলে ম্যাসেজের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন, তাদের জন্য সে ব্যবস্থাও রয়েছে।

প্রশ্নঃ এই একাডেমীর প্রতিষ্ঠাতার আক্বীদাহ-মানহাজ বা মতাদর্শ সম্পর্কে জানতে চাই।

উত্তরঃ একাডেমীর প্রতিষ্ঠাতার আক্বীদাহ হলো কুর’আন, সুন্নাহ ও সালাফ আস-স্বলেহগনের আক্বীদাহ, তিনি মানহাজুস সালাফের অনুসারী। তিনি সালাফ আস-স্বলেহগনের বুঝ অনুসারে কুর’আন ও সুন্নাহের অনুসরন করেন।

প্রশ্নঃ নির্দিষ্ট সময়ে কোর্স সম্পন্ন করতে না পারলে করনীয় কী?

উত্তরঃ কোনো বিশেষ কারনে নির্দিষ্ট সময়ে কোর্স সম্পন্ন করতে না পারলে এক্সট্রা সময় দেওয়া হবে।

শিক্ষার্থীদের মতামত

আল'হামদুলিল্লাহ, অন্যদের কথা বাদ, একজন মেয়ের ঘরে বসে পর্দার সহিত 'ইলম অর্জনের সেরা একটি প্রতিষ্ঠান আল'হামদুলিল্লাহ। একাডেমির টিচারদের সুন্দর আখলাক, এবং স্টুডেন্টদের প্রতি কেয়ারিং, আর্থিক সামর্থ্য না থাকলে তাকে কোনোরুপ প্রশ্ন ছাড়াই ফ্রিতে পড়ার সুযোগ, তাদের সুবিধা অসুবিধা বিবেচনায় আনেন, উস্তাযরা আল'হামদুলিল্লাহ।

এছাড়াও ফ্রি মিক্সিং এড়ানোর ক্ষেত্রে উস্তাযরা যথেষ্ট সচেতন, বোনদের পর্দার সহিত পড়ার সুযোগ। ওভার অল, আল'হামদুলিল্লাহ একটি ভালো প্রতিষ্ঠান, আমি আক্বিদাহ শিখেছি আল'হামদুলিল্লাহ।
আমাতুল্লাহ খাদিজা
পেশাঃ স্টুডেন্ট
দ্বীনের বুঝ আসার পর অনেক আলেম, হুজুরদের দেখেছি। কখনও প্রশান্তি পাইনি তাদের আর ইসলামের মাঝে দূরত্ব দেখে। কোনো হকপন্থী আলেম'র থেকে দ্বীন শিক্ষা করতে পারাটা দুঃস্বপ্নের মতো মনে হচ্ছিল। কারণ যাদের মাঝে দ্বীনের উজ্জ্বল আলো দেখতে পাই তাদের কাছে দ্বীন শিক্ষা করার সাধ্য আমার নেই।

এখানে উস্তাদের ব্যাপারে সু-ধারণা দিন দিন প্রবল হচ্ছে। উস্তাদদের থেকে নববী ইলমের পরশ পাই যেন। আর এটাও সম্ভব হচ্ছে কারণ— অনলাইন ভিত্তিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অর্থনৈতিক বিষয়ে সমস্যা থাকলে সেগুলো গুরুত্ব সহকারে নেয়া এবং স্টুডেন্টকে অকল্পনীয় ভাবে ইলম অর্জনে অর্থনৈতিক ছাড় দেয়ার জন্য।
শিহাব উদ্দীন ইবন তোফায়েল
পেশাঃ স্টুডেন্ট
২০১৭ সালের শুরু থেকে দ্বীন প্র‍্যাক্টিস শুরু করার আগ পর্যন্ত জাহেল ছিলাম। আল্লাহর রহমতে শুরু থেকেই ডিসিশন নিয়েছিলাম একটু যাচাই বাছাই করে দ্বীন পালন করব।
ইলম অর্জনের জন্য অবশ্যই ভাল আলিমের গাইডলাইনের প্র‍য়োজন নতুবা শয়তানের ধোকায় পথভ্রষ্ট হওয়ার আশংকা থাকে। আক্বীদাহ ব্যাসিক কোর্সের মাধ্যমে প্রথম মাইনুদ্দীন ভাইয়ের সাথে কথা হয়।

আল্লাহর রহমতে IOA তে ডিপ্লোমা ও অনার্স কোর্স শুরু হচ্ছে। আল্লাহর কাছে দুয়া করি আল্লাহ IOA এর শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের হিদায়াতের পথে অটল রাখুন এবং ইলমে বারাকাহ দান করুন।
হাসান শরীফ
পেশাঃ ডাক্তার
মহান আল্লাহর কাছে অশেষ শুকরিয়া যে IOA এর মত একটি অসাধারণ প্লাটফর্ম খুঁজে পেয়েছি।
"Diploma in Islamic studies" কোর্সটির সিলেবাস অত্যন্ত গুছানো যা জেনারেল পড়ুয়া অথবা চাকুরিজীবিদের জন্য অত্যন্ত উপোযোগী।

আকিদাহ ইসলামি শরিয়তের খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় যেটি এই একাডেমিতে শেখানো হয় খুবই গুরুত্ব সহকারে সালাফদের মানহাজের আলোকে শিক্ষা দেওয়া হয় । এছাড়াও ফিকহ এর বিষয় গুলো এখানে পরিপূর্ণভাবে উপস্থাপন করা হয় উভয় পক্ষের মতকে উল্লেখ করেই। একাডেমির উস্তাযগণ খুবই হেল্পফুল এবং অসাধারন ব্যক্তিত্বের অধিকারী।
আশিকুল আকবার
পেশাঃ মেডিক্যাল স্টুডেন্ট
এই অ্যাকেডেমীর যে দিকটা সব থেকে বেশি আকর্ষণ করেছিল, তা হল- বর্তমানের সকল দলমতের ঊর্ধ্বে যেয়ে শুধু সালাফদের শিক্ষা-বুঝ-ব্যাখ্যা অনুযায়ী কুরআন সুন্নাতের ইল্মকে উম্মাতের সামনে তুলে আনার প্রচেষ্টা।

আল'হামদুলিল্লাহ, এখানে উস্তাদগণ সকলেই অনেক যোগ্য, বি ফাদলিল্লাহ তা'আলা।

সালাফদের সময়কার যোগ্যতার ভিত্তিতে 'ইযাযাত' এখন গৌণ বিষয়। এখানে সালাফদের এজাতীয় সোনালী ঐতিহ্যের প্রতিফলন পাবেন, ইনশা আল্লাহ।
আবু মুহাম্মাদ
পেশাঃ গ্রাফিক্স ডিজাইনার।
অনলাইনে হিফজ কোর্সের মাধ্যমে এই একাডেমির সাথে পরিচিত হওয়া।
আলহামদুলিল্লাহ আক্বিদাহ কোর্স সহ আরো যেসকল কোর্স পরবর্তীতে করলাম সবগুলোই ভালো লেগেছে। কোর্সগুলোর সিলেবাস সুন্দর ভাবে সাজানো।
সত্যি কথা বলতে - এই একাডেমি টা আমার জন্য আল্লহর তরফ থেকে একটা বিশাল বড় গিফট। অন্যদের ব্যাপার জানিনা, তবে আমি অনেক কিছুই শিখেছি এখান থেকে আলহামদুলিল্লাহ। আল্লহ ওনাদেরকে অনেক বারাকাহ দিন। এই একাডেমির মাধ্যমে সহীহ জ্ঞানের প্রচার ঘটুক - এই দুয়াই করি। আমিন।
আয়িশাহ সিদ্দিকা
পেশাঃ মেডিক্যাল স্টুডেন্ট

ভাই ও বোনদের জন্য আমাদের পৃথক দুটি ফেসবুক পেইজ